মানবতাবিরোধী অপরাধ মামলায় প্রথম খালাস পেলেন তিনি

মানবতাবিরোধী অপরাধ মামলায় প্রথম খালাস পেলেন তিনি

প্রথমবারের মতো ময়মনসিংহে মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় একজনকে খালাস দিয়েছেন আদালত। একই মামলার রায়ে তিনজনকে আমৃত্যু কারাদণ্ড এবং পাঁচজনকে ২০ বছর করে কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।
বৃহস্পতিবার (১১ ফেব্রুয়ারি) বেলা পৌনে ১২টার দিকে ট্রাইব্যুনালের চেয়ারম্যান মো. বিচারপতি শাহিনুর ইসলামের নেতৃত্বে তিন সদস্যের আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে এ রায় ঘোষণা করা হয়। সদস্য বিচারপতিরা হলেন- আমির হোসেন ও আবু আহমেদ জমাদার।

খালাস পাওয়া ব্যক্তির নাম আবদুল লতিফ। এছাড়া রায়ে মো. সামসুজ্জামান ওরফে আবুল কালাম, এএফএম ফয়জুল্লাহ (পলাতক), আব্দুর রাজ্জাক মণ্ডলকে (পলাতক) আমৃত্যু দণ্ড দেওয়া হয়েছে। ২০ বছর করে সাজা দেওয়া হয় মো. খলিলুর রহমান, মো. আবদুল্লাহ, মো. রইছ উদ্দিন আজাদী ওরফে আক্কেল আলী, আলিম উদ্দিন খান (পলাতক) ও সিরাজুল ইসলাম তোতাকে।

আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে এ পর্যন্ত রায় আসা ৪২টি মামলার ১১৪ জন আসামির মধ্যে এবারই প্রথম কেউ বেকসুর খালাস পেলেন। আর এটিই প্রথম মামলা যেটিতে কোনো আসামির মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়নি।
এ প্রসঙ্গে রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী প্রসিকিউটর মো. মোখলেসুর রহমান বাদল বলেন, এটিই প্রথম মামলা যেখানে একজন আসামিকে খালাস দিলেন ট্রাইব্যুনাল। আসামিদের বিরুদ্ধে মুক্তিযুদ্ধের সময় চারজনকে হত্যা ও ৯ জনকে আটক এবং নির্যাতনের চারটি অভিযোগ ছিল।

২০১৮ সালের ১৩ মার্চ তাদের বিচার শুরু হয়। বিচারকাজ শেষ হয় গতবছরের ২৬ জানুয়ারি। আসামিদের মধ্যে চারজন পলাতক ছিলেন। বৃহস্পতিবার পাঁচজনকে হাজির করা হয় ট্রাইব্যুনালে। তবে রায়ের দিন সকালে পলাতক এক আসামি আলিমুদ্দিন খান ট্রাইব্যুনালে হাজির হওয়ার ঘটনায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। ট্রাইব্যুনাল সংশ্লিষ্টরা বলছেন, রায় ঘোষণার পর সে আসল আসামি কি না- যাচাই করে পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!