আবারও সুনামগঞ্জ যাচ্ছেন মামুনুল হক!

আবারও সুনামগঞ্জ যাচ্ছেন মামুনুল হক!

শাল্লায় হিন্দুপল্লীতে হা’ম’লার রেশ না কাটতেই ফের সুনামগঞ্জ যাচ্ছেন মাওলানা মামুনুল হক। আগামী রোববার জামালগঞ্জের একটি মাদ্রাসার ইসলামী মহাসম্মেলনে

অতিথি করা হয়েছে তাকে। এদিকে এ আয়োজনে স্থানীয় উপজেলা চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ নেতা ইকবাল আল আজাদ এবং স্থানীয় কয়েকজন আওয়ামী লীগ নেতাদেরও অতিথি করা হয়েছে।

আওয়ামী লীগ নেতা ও জনপ্রতিনিধিদের দাবি তাদের না জানিয়েই অনুষ্ঠানে অতিথি করা হয়েছে। এ ব্যাপারে প্রশাসনের কাছে লিখিত অ’ভিযোগও করেছেন তারা। তাদের শং’কা শাল্লার ঘ’টনার পর মামুনুল হক জামালগঞ্জে এলে অ’প্রীতি’কর ঘ’টনা ঘটতে পারে।

উপজেলা চেয়ারম্যান ইকবাল আল আজাদ আয়োজন বন্ধ করার জন্য প্রশাসনকে অনুরোধ জানিয়েছেন। জানা গেছে, প্রশাসনের অনুমতি না নিয়েই ইসলামী মহাসম্মেলনের আয়োজন করা হয়েছে জামালগঞ্জে। স্থানীয় উপজেলা চেয়ারম্যানের সঙ্গেও আলাপ হয়নি। অথচ রঙিন পোস্টার ছাপিয়ে এতে মামনুল হককে অতিথি করে ইসলামী মহাসম্মেলনের আয়োজন করা হয়েছে।

খাদিমুল কোরআন মহিলা মাদ্রাসা জামালগঞ্জ খতমে বুখারি এ ইসলামী মহাসম্মেলনের আয়োজক। উপজেলা সদরের হেলিপ্যাড মাঠে আয়োজিত এ সমাবেশে হেফাজতের মামুনুল হক ছাড়াও অতিথি করা হয়েছে জামালগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ নেতা ইকবাল আল আজাদ,

সুনামগঞ্জ জেলা পরিষদের সদস্য আব্দুল মুকিত চৌধুরী, জামালগঞ্জ সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাজ্জাদ মাহমুদ তালুকদার (সাজিব), জামালগঞ্জ সদর ইউনিয়নের ৮ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য মো. শহিদুল ইসলামকে (সুহেল)। এছাড়া নাম আছে জামালগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোহাম্মদ আলীর।

তবে আওয়ামী লীগ নেতা ও জনপ্রতিনিধিদের দাবি তাদের না জানিয়েই অনুষ্ঠানে অতিথি করা হয়েছে। এ ব্যাপারে প্রশাসনের কাছে লিখিত অভিযোগও করেছেন তারা। উপজেলা চেয়ারম্যান ইকবাল আল আজাদ বলেন, আমার সঙ্গে কোনো কথা না বলেই আমাকে এ আয়োজনে অতিথি করা হয়েছে।

বিষয়টি আমি আয়োজক ও প্রশাসনকে জানিয়েছি। জামালগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বিশ্বজিত দেব বলেন, সমাবেশের কোনো আবেদন করা হয়নি। আবেদন করা হলে ঊর্ধতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলে আমরা সিদ্ধান্ত নেব।

এদিকে অনুমতি না নিয়ে হেফাজতের সমাবেশের পোস্টারে নাম ব্যবহারের অভিযোগে বৃহস্পতিবার রাতে থানায় জিডি করেছেন জামালগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোহাম্মদ আলী। জিডির বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন জামালগঞ্জ থানার ওসি সাইফুল আলম।

এ প্রসঙ্গে ওই ইসলামী সম্মেলন আয়োজক কমিটির সদস্য ও খাদিমুল কোরআন মহিলা মাদ্রাসার মুহতামিম হাফেজ মাওলানা কাওছার আহমদ বলেন, আমাদের অনুষ্ঠানটি শাল্লার ঘটনার অনেক আগেই নির্ধারিত। ফলে এটি পরিবর্তনের সুযোগ নেই।

না জানিয়ে অনেককে অতিথি করা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আমরা অনেককেই দাওয়াত দেওয়ার পর নাম দিয়েছি। তবে ইউএনও অফিসে বৈঠকের পর তাদের বলেছি পরের প্রচার-প্রচারণায় আর তাদের নাম ব্যবহার করব না।

এর আগে হেফাজতে ইসলামের নেতা মামুনুল হকের বিরুদ্ধে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেওয়ার জেরে গত বুধবার সকালে সুনামগঞ্জের শাল্লার নোয়াগাঁও গ্রামে দেশীয় অ’স্ত্রশ’স্ত্র নিয়ে হা’ম’লা চালায় অনুসারীরা। এ সময় গ্রামের প্রায় ৮০টি হিন্দু বাড়ি ভাং’চুর ও লু’টপা’ট করে তারা।

Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!