আপনার কন্যা শি’শুকে এই সাধারন কথা গুলো একদমই ব’লবেন না, আজই স’চেতন হোন!

আপনার কন্যা শি’শুকে এই সাধারন কথা গুলো একদমই ব’লবেন না, আজই স’চেতন হোন!

একটি মেয়ে বড় হয় অনেক স্বপ্ন চোখে নিয়ে। কখনো কখনো তা বাস্তবে রুপ নেয় কখনো তা হারিয়ে যায় নিমিষেই। তবে পরিবারের একটুখানি সহযোগিতা পারে একটি মেয়েকে অনেখানি স্বাবলম্বী ক’রতে, তার মনের জো’রকে বৃ’দ্ধি ক’রতে।

একজন মেয়েকে প্রায়শই নানা স’মস্যার সম্মুক্ষিন হতে হয়। তাই পরিবার থেকে তাকে সামনে এগিয়ে যেতে বলা উচিত। সাধ’রণত এমন কিছু কথা প্রচলিত রয়েছে যা কন্যাশি’শুকে প্রাযই বলা হয় কিন্তু এ কথাগুলো ভুলেও কন্যাশি’শুকে বলা উচিত নয়।

তুমি খুব ছোট: কিছু কিছু কাজ মেয়ে সন্তান ছেলে সন্তানদের তুলনায় ভালো ক’রতে পারে। তাছাড়া তাকে অনেক কাজে উৎসাহী করা হয় না সে ছোট বলে। মানুষ চেষ্টা করে বার বার ব্য’র্থ হয়ে সফলতার মুখ দেখে। তাই তাকে ছোট থেকে উৎসাহ দেয়া উচিত। তাকে ছোট বলে তার নিজে’র কাছে অ’বহেলিত করবেন না।

কম আশা করা: মানুষ ছোট হলেও তার স্বপ্ন হওয়া উচিত অনেক বড়। কারণ আপনি বড় স্বপ্ন দেখলেই কেবল বড় হতে পারবেন। তাই পরিবারের কন্যা শি’শুটিকে ছোট আশা ক’রতে মানা করুন। তাকে সাহায্য করুন বড় কিছুর স্বপ্ন দে’খতে। তাকে উৎসাহিত করুন।

এই কাজটি ছেলেদের: কোনো কাজ ছেলে বা মেয়ের নয়। সবাই সব কাজ ক’রতে পারে। কাজ ক’রতে চাই মেধা। তাই সে যদি ছোট থেকে কোনো কাজ ক’রতে চায় তবে তাকে বাঁ’ধা দেবেন না। তাকে বলবেন না যে এই কাজটি তোমা’র নয়। নয়তো সে স্বপ্ন দেখার আগে অন্য কিছু নিয়ে ভাবতে শুরু করবে।

ব্য’র্থ সময় ন’ষ্ট: আম’রা প্রায়ই বলি কেনো ব্য’র্থ সময় ন’ষ্ট করছো এই কাজ করে। এতে কী লাভ? সব কাজেই যে একজন মানুষ শুধু লাভবান হবে তা না। যে কোনো কাজ থেকে শেখার অনেক কিছু আছে। তাই তাকে বার বার চেষ্টা ক’রতে দিন। সে কাজ করুক তাহলেই তো শিখতে পারবে।

এই কাজে’র যোগ্য না: কোন কাজে কে কখন পারদর্শী হয়ে উঠে তা কেউ বলতে পারে না। তাই যদি আপনার কন্যা সন্তানটি কোনো কাজে বিশেষভাবে পারদর্শী হয় তবে তাকে অনুপ্রা’ণিত করুন। কাজ ছোট বলে তাকে আগেই থামিয়ে দেবেন না।

Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!