আমি খুব হতাশাগ্রস্ত হয়ে পড়েছিলাম, প্রতি রাতে কাঁদতাম

আমি খুব হতাশাগ্রস্ত হয়ে পড়েছিলাম, প্রতি রাতে কাঁদতাম

অ’ভিনেত্রী আশনা হাবিব ভাবনা। শুধু অভিনেত্রী নন একজন লেখিকাও তিনি। ব‌্যক্তিগত জীবনে বেশ স্বাধীনচেতা মানুষ। কিন্তু অভিনয় ক‌্যারিয়ারে নানা প্রতিকূল প’রিবেশের মুখোমুখি হ’য়েছেন বলে জানিয়েছেন এই অভিনেত্রী।

মঙ্গলবার (৩১ আগস্ট) ভা’বনা তার ফেসবুকে দুটি ছবি পোস্ট করে একটি স্ট‌্যাটাস দিয়েছেন। এ’কটি ছবিতে নন্দিত নাট‌্যনির্দেশক সৈয়দ জা’মিল আহমেদের সঙ্গে ক‌্যামেরাবন্দি হয়েছেন।

আর এই স্ট‌্যাটাসে বিরূপ অভিজ্ঞতার কথাও জানিয়েছেন তিনি। ভা’বনা তার দুঃসহ দি’নের কথা স্মরণ করে বলেন- আমি খুব হতাশাগ্রস্ত হয়ে পড়েছিলাম; অ’ভিনয়, কাজ, আমার পারিপার্শ্বিকতা নিয়ে প্রতি রাতে কাঁ’দতাম।

এই পৃথিবী আ’পনাকে পাথর ছুড়ে মারলে, আপনি উ’পলদ্ধি করতে পারবেন ধ’রে রাখার কিছু নেই। একজন এতকিছু নিতে পারে! প্রত‌্যেকে প্রত‌্যেককে লাথি মা’রছে, ছোট করার চেষ্টা করছে, অস্বস্তিতে ফেলার চেষ্টা করছে।

হতাশা কা’টিয়ে প্রাণ ফিরে পে’য়েছেন ভাবনা। আর তা সম্ভব হয়েছে নাট‌্যনির্দেশক সৈয়দ জামিল আ’হমেদের কারণে। তা উ’ল্লেখ করে ভাবনা বলেন, আমি অভিনয় প্রচন্ড ভা’লোবাসি।

প্রতিদিন একজন ভালো অ’ভিনেত্রী হতে চাই। কিন্তু আমি খুব মনমরা ছিলাম এবং প্রথমবার উপলদ্ধি করলাম আমার কো’নো শক্তি নেই। তারপর সৈয়দ জামিল আহমেদের অভিনয় বি’ষয়ক ক’র্মশালায় নিজেকে যুক্ত করলাম।

আ’মার জীবনের গৌ’রবময় ৭টি দিন পার করেছি। আমি নিজেকে আবার ফিরে পেয়েছি, আবার শক্তি পেয়েছি। এখন আমি জী’বনের শেষ দিন পর্যন্ত অভিনয়টাই করে যেতে চাই।

আ’জ থেকে আমি আ’মার জী’বন, কাজ নি’য়ে আরো বেশি আত্মবিশ্বাসী, মনোযোগী। কৃ’তজ্ঞতা প্রকাশ করে ভাবনা বলেন, আমি কখনো কোনো অ‌্যাক্টিং স্কুল, কর্মশালা, থিয়েটার ক্লাস থেকে শিক্ষা গ্রহণ করিনি।আজ গ”র্বের সঙ্গে বলছি, জামিল আহ’মেদ আমার গুরু। আমার প্রথম অ’ভিনয়ের শিক্ষক। অসংখ‌্য ধন‌্যবাদ স‌্যার।

Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!