রান্নাঘরে হটাৎ বেরিয়ে আসল বিশাল কোবরা সা;প, রেগে গিয়ে ফোঁস করল, তুমুল ভাইরাল ভিডিও

রান্নাঘরে হটাৎ বেরিয়ে আসল বিশাল কোবরা সা;প, রেগে গিয়ে ফোঁস করল, তুমুল ভাইরাল ভিডিও

আমাদের বাড়ির রান্না ঘরে আমাদের প্রায় সারাদিনই পরে থাকতে হয়। সারাদিনের নানা কাজ সব থেকে বেশি করা হয় রান্নাঘরে।এহেন যদি এই রান্না ঘরে ঢুকে আসে সা;প? সা;পকে সব মানুষই কম বেশি ভয় করে থাকেন।

কিন্তু আমরা এটা ভুলে যাই পৃথিবীতে বিষধর ও বিষহীন, দুই রকম সা;পই আছে। সব সা;প মানুষের জন্য ক্ষতিকর নয়। এই সব সা;পেদের বাঁচানোর জন্যই তৈরি হয়েছে বিভিন্ন রেস্কিউ কমিটি।

বিভিন্ন সর্প রক্ষক যেমন মির্জা মহাম্মদ আরিফ সমিরন বারিক প্রভৃতি মানুষরা এই সব সা;পেদের বাঁচিয়ে চলেছেন অবিরাম। কিন্তু সর্পরক্ষক হওয়া মোটেই সহজ কাজ নয়। অনেক কম বয়স থেকেই এই কাজের জন্যে ট্রেনিং নিতে হয়।

বিশেষত সাপ খুবই আক্রমনাত্মক প্রাণী, রেগে গেলে যে কোন সময় সে দংশন করে দেয়। বিষের জ্বালায় যে কোন মানুষের মৃ;ত্যু পর্যন্ত হতে পারে। তাই সে ক্ষেত্রে সা;প সম্পর্কে জানা এবং সেই সম্পর্কিত সমস্ত বিজ্ঞানের শাখা গুলি জানা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

সর্পরক্ষক মির্জা মহাম্মদ আরিফ অত্যন্ত জনপ্রিয়। বিশেষ করে তার ভিডিওগুলি সবথেকে বেশি ভাইরাল হয়। তাকে অধিকাংশ মানুষই ভালোবাসেন। তার ভিডিওতে বারবার ফুটে উঠেছে তার মানবিকতার দিকটি। তবে এসব কাজে প্রাণহানির আশঙ্কা প্রবল।

সম্প্রতি একটি ভাইরাল ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, এক স্থানে রান্না ঘরের মধ্যে সা;প ঢুকে গেছে। মির্জা মোহাম্মদ আরিফ সেই স্থানে গিয়ে রান্নাঘরে সা;পটিকে খুঁজতে থাকেন।

শেষ পর্যন্ত সবজির ঝুড়ির তলায় সা;পটিকে পাওয়া যায়। সা;পটিকে ধরার চেষ্টা করলে সা;পটি বার বার হাত থেকে পালাতে থাকে। শেষ পর্যন্ত সা;পটির লেজ চেপে ধরলে সে ক্ষুব্ধ হয়ে ফনা তোলে এবং বারবার তাকে দংশন করার চেষ্টা করে।

এমনকি হাত থেকে পালিয়ে এসে গ্যাসের মাথায় উঠে যায় এবং গ্যাসের সিলিন্ডারের সঙ্গে জড়িয়ে তার বিষ ছুড়তে থাকে। শেষ পর্যন্ত অনেক কষ্টে ;সা;পটিকে ধরা সম্ভব হয়। মোহাম্মদ আরিফ সা;পটিকে বাইরে নিয়ে আসেন।

সা;পটিকে বাইরে এনে মির্জা মহাম্মদ আরিফ অনেক গুরুত্বপূর্ণ তথ্য প্রদান করেন। এমনকি তিনি এও বলেন, মানুষজন এরকম সা;প দেখলে যেন সঙ্গে সঙ্গে সর্প রক্ষকদের খবর দেয়।

কারণ এইসব সা;প যথেষ্ট বিষধর, যেকোনো মুহূর্তে বিপদ ঘটতে পারে। কিন্তু ভয় পেয়ে কে যেন সা;প গুলিকে আঘাত না করেন, কারণ তারাও অবলা জীব। এক্ষেত্রে তিনি বলেন ছোট কোবরা সা;প গুলি এক কামরে বেশি বিষ ঢেলে দেয় মানুষের গায়ে,

এর ফলে মানুষের মৃ;ত্যু হতে পারে। শেষ পর্যন্ত তিনি সা;পটিকে একটি নিরাপদ ভাবে পলিথিনের ব্যাগে ঢুকিয়ে নেন। হাজার হাজার মানুষ ভিডিওটি লাইক করেছে।

কমেন্ট বক্সে সবাই তার জন্য ঈশ্বরের কাছে প্রার্থনা করেছেন যেন তিনি এভাবেই কাজ চালিয়ে যেতে পারেন। বিশেষ করে মির্জা মহাম্মদ আরিফ এর মত সর্প রক্ষকরা সা;পের প্রজাতি গুলিকে বাঁচানোর গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন।

কারণ অধিকাংশ মানুষই সা;পকে বিষধর এবং ভয়ঙ্কর প্রাণী ভেবে মেরে ফেলে, সেক্ষেত্রে সর্প রক্ষকরাই মানুষকে সঠিক জ্ঞান দান করেন এবং বিরল সা;পগুলিকে রক্ষা করেন।

তারা সব জায়গায় মানুষকে সা;প সম্পর্কে সচেতন করেন এবং সঠিক শিক্ষা প্রদান করেন। এই সর্প রক্ষকরা উপযুক্ত ট্রেনিং প্রাপ্ত হন। তাই তারা প্রত্যেক ভিডিওতে বলে দেন সাধারণ মানুষ যেন এইরকম ভাবে সা;প ধরার চেষ্টা না করে,

নচেৎ ফল হতে পারে মারাত্মক। এমনকি তারা সা;পের বিষের প্রকৃতি, এমনকি আহত সা;পের সেবা শুশ্রূষা করে তাকে বাঁচিয়েও থাকেন। সর্প রক্ষকদের কুর্ণিশ জানাই তাদের এই মহান কর্মের জন্য।

পৃথিবীতে আজও এইসব মানুষদের জন্যই বাস্তুতন্ত্রের ভারসাম্য রয়েছে সংরক্ষিত। পৃথিবীতে প্রত্যেকটি পশুর মধ্যে রয়েছে খাদ্য-খাদক সম্পর্ক, কিন্তু মানুষ মূর্খতার সাথে বন্য প্রাণীদের মেরে তাদের অস্তিত্ব করেছে বিপন্ন। এর ফলে দেখা যাচ্ছে পৃথিবীতে এত সমস্যা। কিন্তু এখনো সময় আছে মানুষের সচেতন হওয়া প্রয়োজন নচেৎ ফল হবে মা’রা’ত্মক।

Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!