খিদের জ্বালা মেটাতে গরুর স্তন্য পান করছে খুদে ছাগল, মুহূর্তে ভাইরাল ভিডিও

খিদের জ্বালা মেটাতে গরুর স্তন্য পান করছে খুদে ছাগল, মুহূর্তে ভাইরাল ভিডিও

পৃথিবীতে মায়ের থেকে বড় স্থান আর কারোর নেই। শাস্ত্রে বলে “মাতা স্বর্গাদপি গরীয়সী” অর্থাৎ মা স্বর্গের থেকেও উচ্চ স্থানে অবস্থান করেন। শিশুর বুকের প্রথম শব্দটি হল মা।

দশ মাস দশ দিন গর্ভে ধারণ করে অসহ্য কষ্ট সহ্য করার পর তবেই মা তার সন্তানকে পৃথিবীর আলো দেখান। তিনি তার সন্তানের জন্য নিজের প্রাণ দিতেও প্রস্তুত থাকেন। মায়ের হয়না কোন জাত হয়না কোন ধর্ম হয় না কোন গোত্র।

সুতরাং এই মাতৃত্ব যে শুধু মানুষের মধ্যে দেখা যায় তা নয় সমস্ত পশু পাখির মধ্যে বিরাজমান হলেন “মা”। মাতৃ শক্তি ছাড়া সমস্ত জগৎ অচল। এমনকি ধর্মানুসারে বলা হয় সমস্ত সৃষ্টির সৃষ্টি কর্তা হলেন মা মহামায়া, যিনি আদি জগত জননী।

মা সন্তানের জন্য নিজের প্রাণ দিতে পারেন তা বারবার প্রমাণিত হয়েছে। একবার লাইফ ফটোগ্রাফার এর ফটোতে ফুটে উঠেছিল এমনই এক বেদনাদায়ক কাহিনী।

ফটো দিতে দেখা যাচ্ছিল একটি হরিণকে অনেকগুলি বন্য পশু ছিঁড়ে ভক্ষণ করে খাচ্ছে। আসলে তারা প্রথমে হরিণের বাচ্চা গুলিকে খেতে চেয়েছিল কিন্তু হরিণ মাতা শিশুদের বাঁচানোর জন্য সেই বন্য পশুদের কাছে নিজেকে সঁপে দেয়।

তার এই আত্মত্যাগ সারা পৃথিবী কে দিয়েছিল কাঁদিয়ে। মাতৃমূর্তি সর্বত্র বিরাজমান। গাভীকে আমরা গোমাতা বলে থাকি। আসলে শাস্ত্রে বলে, স্বর্গে কামধেনু নামে একটি গাভী আছে, সেই গাভী সকলের সমস্ত ইচ্ছা পূরণ করে।

এছাড়াও ছোট থেকে বাড়ির সকলেই আমরা গাভীর দুধ খেয়ে বড় হই, তাই অনেক স্থানে আজও কোন স্ত্রী প্রাণীকে মাংসের জন্য ব্যবহার করা হয় না।

আগেই বলেছি মাতৃমূর্তির কোন নির্দিষ্ট রূপ নেই সমস্ত প্রাণীর মধ্যেই তিনি বিরাজমান, সম্প্রতি ভাইরাল একটি ভিডিও যেন সেই ঘটনাটি আমাদের দেখিয়ে দিল চোখের সামনে।

সম্প্রতি ভাইরাল একটি ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, একটি গাভী একটি ছোট্ট ছাগল ছানাকে তার নিজের দুধ পান করাচ্ছে। শুনতে আশ্চর্য লাগলেও ঘটনাটি সত্যি।

সম্ভবত ছাগল ছানাটির মা মারা গেছে বা কোনো কারণে তার পক্ষে মায়ের কাছে থাকা সম্ভব হচ্ছে না সেক্ষেত্রে গাভিটি পুরো নিজের মায়ের মতোই তার প্রাণ বাঁচিয়েছে।

ভিডিওটি দেখে মুগ্ধ হয়ে গেছেন দর্শক। মায়ের যে কোন জাত হয়না কথাটি যেনো প্রমাণ করে দিল এই গাভীটি। ভিডিওটি দেখে প্রত্যেকটি মানুষ হয়ে গেছেন আবেগমথিত। গাভীর এই ভালবাসায় মুগ্ধ হয়ে গেছেন সবাই।

ভিডিওটি পোস্ট করা হয়েছে একটি অফিসিয়াল ইউটিউব চ্যানেল থেকে। হাজার হাজার মানুষ ভিডিওটি লাইক করেছেন। ফেসবুক ইনস্টাগ্রাম ইউটিউব সব জায়গায় শেয়ার হয়ে গেছে ভিডিওটা।

মানবতা যে শুধু মানুষের মধ্যে থাকে তা নয়, আজ এই গাভিটি যেন তার নিজের মধ্যে যে মাতৃশক্তির অবস্থান তা সকলকে চাক্ষুষ দেখিয়ে দিল। তার “গো মাতা” নাম সার্থক।

পশুপাখিদের একে অপরের সঙ্গে শুধুমাত্র খাদ্য ও খাদকের সম্পর্ক, তাদের মধ্যে নেই কোন হিংসা নেই কোন দ্বেশ। সকলের সঙ্গে মিলেমিশে বসবাস করে তারা। বিশেষ করে তারাও প্রত্যেক পশুপাখির দুঃখ কষ্ট বোঝে কিন্তু মানুষের মধ্যে আজকাল যেন মনুষ্যত্বের বড় অভাব।

Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!