”তালেবান ইস্যুতে ব্যাপক সমালোচনায় মিজানুর রহমান আজহারি- (ভিডিও)”

”তালেবান ইস্যুতে ব্যাপক সমালোচনায় মিজানুর রহমান আজহারি- (ভিডিও)”

আফগানিস্তানে তালেবান সরকারকে হটানোর প্রায় ২০ বছর পর গত ৯ মার্চ দেশটি থেকে সেনা সরিয়ে নিতে শুরু করে আমেরিকা। মার্কিন সেনা সরিয়ে নেওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ক্ষমতা দেখাতে শুরু করে তালেবান।

জুন মাসের শেষ দিকে আফগান বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষ বাঁধে তাদের। পরিবর্তিতে দেশের দক্ষিণ প্রান্ত থেকে রাজধানীর দিকে এগুতে শুরু করে তারা।

একের পর এক এলাকা দখল করতে থাকে তারা। সব শেষ চলতি মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহে রাজধানী কাবুলের নিয়ন্ত্রণ যায় তালেবানের হাতে।

আফগানিস্তানে নতুন করে তালেবানের ক্ষমতা দখলের ঘটনা এখন ‘টক অব দ্যা ওয়ার্ল্ড’। বিশ্বের বিভিন্ন দেশ, সংস্থা ও ব্যক্তিরা আফগানিস্তান নিয়ে চুলচেরা বিশ্লেষণ করছেন।

এর মধ্যে রয়েছেন নানা ইসলামিক ব্যক্তিত্বও। তবে তালেবান ইস্যুতে ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়েছেন বাংলাদেশের জনপ্রিয় ইসলামী ব্যক্তিত্ব মিজানুর রহমান আজহারী। আজহারী বর্তমানে মালয়েশিয়ায় বসবাস করছেন।

তালেবানদের কাবুল দখলের পর গত ১৫ আগস্ট সামাজিকমাধ্যম ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দেন আজহারী। ওই স্ট্যাটাসের পর ফেসবুকে ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়েছেন তিনি।

তাঁর স্ট্যাটাসটিতে এ পর্যন্ত প্রায় ৯১ হাজার মানুষ রিঅ্যাকশন দিয়েছেন। কমেন্টে পড়েছে প্রায় ৯ হাজার। সেটি শেয়ার হয়েছে প্রায় ৫ হাজার।

মিজানুর রহমান আজহারী তার ফেরিফাইড ফেসবুক পেজে স্ট্যাটাস লিখেছেন, “পৃথিবীর যে কোন প্রান্তে আমাদের ভাইদের বিজয় মানে আমাদেরই বিজয়। কারণ— আমরা এক দেহ, এক প্রাণ। ছাত্রভাইদের স্বাগতম।

তাদের এই অগ্রযাত্রা অব্যাহত থাকুক। নতুন সম্ভাবনার দ্বার উন্মোচিত হোক। দেশের শান্তি, শৃঙ্খলা এবং উন্নয়ন অব্যাহত রাখাই হবে এখন তাদের সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ।

এ চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় দূরদর্শীতা ও বিচক্ষণতার পরিচয় দিতে হবে। আল্লাহ তা’আলা তাদের সহায় হোন।” এই স্ট্যাটাস লেখার পর তার একটি পুরনো ভিডিও নতুন করে সামনে এসেছে।

কি ছিল মাওলানা মিজানুর রহমান আজহারীর ভিডিওতে?

ফেসবুকে পাওয়া ২৯ সেকেন্ডের ওই ভিডিওতে দেখা যায়, মাওলানা মিজানুর রহমান আজহারী বলছেন, “এই আইএস তালেবান এসব আমাদের তৈরি নয়, এগুলো আমেরিকার প্রেসিডেন্টগুলোর তৈরি।

বিল ক্লিনটন আবিষ্কার করে গিয়েছেন তালেবান। জর্জ ডাব্লিউ বুশ আবিষ্কার করেছে আল কায়দা। বারাক ওবামা আবিষ্কার করেছে আইএস। এই তালেবান আলকায়দা কত মানুষের এগুলোর নামে কত মাদরাসা ছাত্রের হয়রানি করা হলো।”

দেখা যায়, এই ভিডিওতে অনেকে নেতিবাচক কমেন্টস করলেও অনেকে মিজানুর রহমান আজহারীর পুরো ভিডিওটি দেখার কথা বলছে। তারা বলছে, “পুরো ভিডিও না দেখে কমেন্ট করা ঠিক না৷

কারো কাছে ফুল ওয়াজটা থাকলে লিংক দিলে ভালো হয়”।এই স্ট্যাটাসের কমেন্টে গিয়ে দেখা যায়, অনেকে তার সমালোচনা করছেন। কেউ কেউ বলছেন, অনেক আগে আপনি একটি মন্তব্য করেছিলেন সেটার কী হবে!

MD Shakil Hossain Bappy নামের একজন লিখেছেন: তাহলে ছাত্র ভাইদের নিয়ে আপনার আগের বক্তব্য পরিহার করুন। না বুঝেই তো তখন বলে ফেলেছিলেন। অনেক যুবক আপনার কথায় ভুল মেসেজ পেয়েছিল ছাত্র ভাইদের নিয়ে।

Daud Rabbany লিখেছেন: এদের নিয়ে আপনি একটা মন্তব্য করেছিলেন অনেক আগে। এটা যে কত কত মানুষকে বিভ্রান্ত করে রেখেছিল এতদিন!! যেহেতু আপনি সেলিব্রেটি। অথচ বাংলাদেশেরই কিছু সাধারণ গুরাবা আলেম ঠিকই এদেরকে প্রথম থেকেই হকপন্তী রুপে চিনিয়েছে।

আমাদের মত সাধারণ মুসলিমদের যদিও এরা আজ সবাই কারাগারে!! কিন্তু তারা সত্যকে লুকায়নি। সত্য ঠিকই উদ্ভাসিত হয়েছে। আর উদ্ভাসিত হবে যুগে যুগে। আপনার প্রথমেই উচিত ছিল আগের সেই বক্তব্যর জন্য অনুতপ্ত হওয়া। তারপর বাকি পোস্ট লেখা।

Monir Hoshan Gazi লিখেছেন: হুজুর আপনার সব কর্মকাণ্ড সমর্থন করলেও এটা সমর্থন করতে পারলাম না। কারণ দেশের হাজার হাজার যুবক আপনাকে ফলো করে। আর এতে তালেবানে যোগ দেওয়ার জন্য অনুপ্রাণিত হবে বলে আমার মনে হয়।

Minhaz Piash লিখেছেন: পূর্বের কথার ব্যাপারে পুনরালোচনা করবেন। অদূরদর্শিতার পরিচয় থাকলে তা স্বীকারোক্তিমূলক আলোচনা করবেন। সত্য স্বীকার করার মধ্যে কোনো দোষ নেই। সত্যকে আড়াল করাই অন্যায়। ভালবাসা থেকে বলছি।

F Burhan Ahmad লিখেছেন: কী ব্যাপার আপনি এত সুন্দর পল্টি নিলেন কিভাবে হযরত? আপনিই তো সেই ব্যাক্তি যিনি বলেছিলেন, বিল ক্লিনটন তৈরী করেছে তালেবান। একথাও তো বলেছিলেন যে, এরা আমেরিকার দালাল।

আপনার সেই ভয়াবহ বক্তব্য কি কখনও প্রত্যাহার করেছেন? যদি না করে থাকেন তাহলে তাদের বিজয়ে তো আপনার আনন্দ হওয়ার কোন অধিকার নেই। কোন অধিকার নেই। জি হ্যাঁ কোন অধিকার নেই।

Monjurul Karim: লিখেছেন, পূর্বের বক্তব্য প্রত্যাহার করুন শাইখ! বেশিদিন হয়নি শাইখ আহমাদুল্লাহ একটি ভুল বক্তব্য দিয়েছিলেন ফেসবুক পোস্টে। আরেকজন আলেম এটা ধরে দেয়ার সাথে সাথেই উনি নিজের ভুল স্বীকার করে পোস্ট দিয়েছিলেন।

আলেমদের ভুলের কারণে গোটা জাতি বিভ্রান্তিতে পড়ে যায়। তাই শাইখ অনুরোধ রইলো এই বিষয়ে আপনার বক্তব্য স্পষ্ট করুন।MD Mahfuz লিখেছেন, শায়খ তো দেখছি বারবার করোনার চেয়েও দ্রুত রুপ পাল্টায়!

একবার বললেন বিল ক্লিনটন আবিষ্কার করেছে তালেবান, তাদের সাথে ইসলামের সম্পর্ক নেই! এখন আবার করোনার ডেল্টা ভেরিয়েন্ট এর চেয়েও দ্রুত রূপ পাল্টিয়ে কী বলতেছেন? বুঝে আসছে না কিছু!

আপনার অন্ধভক্তদের কথা তো একটু ভাবুন?

Mir Md Minhaz Uddin লিখেছেন, হযরত আপনিকো বলেছিলেন, তালেবান আমেরিকার তৈরি, বিল ক্লিন্টন বানিয়েছে তালেবান। যাক আলহামদুলিল্লাহ অবশেষে আপনি আপনার ভুল বুজতে পেরেছেন। তাই পরিপূর্ণ তাহকিক ছাড়া কোন বিষয়ে মন্তব্য করা উচিৎ নয়।থাকে। আমার হযরত কে কাবুলের জন্য আল্লাহ কবুল করে নিক।Dewan Sa’ad Ahmed লিখেছেন, একটা বিষয় হচ্ছে রুজু করা, আরেকটা বিষয় হচ্ছে প্রেক্ষাপট বুঝে কথার সুর বদলানো।

কেউ রুজু করলে সুস্পষ্টভাবে আগের কথা থেকে ফিরে আসবে, ভুল স্বীকার করবে। আর ফলোয়ার্স ধরে রাখার চেষ্টা করলে ট্রেন্ড অনুযায়ী কথা বলবে। তা এখন হযরত কি আগের মিথ্যাচারের জন্য অনুতপ্ত? নাকি যখন মার্কেটে যা চলে, তখন সেটা বলে পাবলিক ধরে রাখতে চান? Azharul Alam Imran লিখেছেন, হযরত আপনি যে বলেছিলেন তালেবানরা বিল কিলিনটনের তৈরী? এখন ওদের কি ভাববো তাতো বললেন না, ক্ষমতা দেখে তাল মেলাচ্ছেন তাতো জানিই, ঐটার কী হবে?

উল্লেখ্য, বর্তমান বাংলাদেশি ইসলামিক বক্তাদের মধ্যে মিজানুর রহমান আজহারী বেশ জনপ্রিয় ব্যক্তিত্ব। তিনি ১৯৯০ সালের ২৬ জানুয়ারি ঢাকার ডেমরায় জন্মগ্রহণ করেন। তার পৈতৃক নিবাস কুমিল্লার মুরাদনগরের পরমতলা গ্রামে বাবা একজন মাদরাসার শিক্ষক। মিজানুর রহমান ঢাকার ডেমরায় অবস্থিত দারুন্নাজাত সিদ্দিকিয়া কামিল মাদরাসা থেকে ২০০৪ সালে দাখিল পরীক্ষায় জিপিএ-৫ পেয়ে উত্তীর্ণ হন।

২০০৬ সালে আলিম পরীক্ষায় গোল্ডেন জিপিএ-৫ লাভ করেন। ২০০৭ সালে ইসলামিক ফাউন্ডেশন আয়োজিত মিসর সরকারের শিক্ষাবৃত্তি পরীক্ষায় প্রথম স্থান অধিকার করে মিসরের আল আজহার বিশ্ববিদ্যালয়ে আন্ডারগ্রাজুয়েট করার জন্য মিসরে যান। সেখান থেকে ডিপার্টমেন্ট অব তাফসির অ্যান্ড কুরআনিক সায়েন্স থেকে ২০১২ সালে শতকরা ৮০ ভাগ সিজিপিএ নিয়ে অনার্স উত্তীর্ণ হন। মিসরে পাঁচ বছর শিক্ষাজীবন অতিবাহিত করার পর ২০১৩ সালে মালয়েশিয়া যান। সেখানে গার্ডেন অব নলেজ খ্যাত ইন্টারন্যাশনাল ইসলামিক ইউনিভার্সিটি থেকে পোস্ট-গ্রাজুয়েশন সম্পন্ন করেন। ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিপার্টমেন্ট অব কোরআন অ্যান্ড সুন্নাহ স্টাডিজ থেকে ২০১৬ সালে পোস্ট-গ্রাজুয়েশন শেষ করেন। মাস্টার্সে তার সিজিপিএ ছিল ৩.৮২ আউট অব ফোর।

Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!