ব্যাংকের লোভনীয় চাকরি ছেড়ে প্লাষ্টিক বোতল দিয়ে আজ ফ্যাক্টরী মালিক !

ব্যাংকের লোভনীয় চাকরি ছেড়ে প্লাষ্টিক বোতল দিয়ে আজ ফ্যাক্টরী মালিক !

পানি খাওয়ার পর যে বোতলটি বর্জ্য হিসেবে ফেলে দেওয়া হয়, সেই প্লাস্টিকের বোতল দিয়ে তৈরি হচ্ছে ফাইবার। এই ফাইবার দিয়ে সুতা বানিয়ে রং-বেরঙের পলেস্টার কাপড় তৈরি হচ্ছে।

এই তুলা আবার বাংলাদেশ থেকে র’প্ত ানি করে বছরে প্রায় ২০০ কোটি টাকা আয়ের পথ তৈরি হয়েছে। প্লাস্টিক বর্জ্য ব্যবহার করে রি-সাইকেল প’দ্ধতিতে তুলা তৈরির এই অ’ভিনব কাজটি এখন দেশেই হচ্ছে।

ঢাকার অদূরে মানিকগঞ্জের সিঙ্গাইরের পানিয়াশাইলে চীনা প্রযুক্তির একটি কারখানা তৈরি হয়েছে। মুমানু পলিয়েস্টার ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড নামে ওই কারখানাটিতে গত কয়েক মাস ধরে প্লাস্টিক পেট বোতল দিয়ে দৈনিক প্রায় ৪০ টন তুলা উত্পাদন করা হচ্ছে। চীন, ভারত, পাকি’স্তান ও থাইল্যান্ডে এ ধরনের কারখানা থাকলেও বাংলাদেশে বর্জ্য থেকে ফাইবার উৎপাদন এটিই প্রথম কারখানা।

যেভাবে পাওয়া যায় ফাইবার: পানি খাওয়ার পর ফেলে দেওয়া স্বচ্ছ বোতল সংগ্রহ করা হয় প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর কাছ থেকে। এই পেট বোতল ছোট ছোট করে কে’টে ফ্লেক্স তৈরি করা হয়। এরপর গরম পানি দিয়ে সেই ফ্লেক্স ধোয়া হয়।

উচ্চ তাপ ও চাপে সেই ফ্লেক্স আট’ ঘণ্টা বায়ু নিরোধক ড্রামে রাখা হয়। ভ্যাকুয়াম ড্রামে তাপ দেওয়ার পর তৈরি হয় পেস্ট। সেই পেস্ট স্পিনারেট দিয়ে স্নাইবার করা হয়। এরপর তা সূক্ষ্ম সুতার আকারে বেরিয়ে আসে।

ওই সুতা আবার বিভিন্ন আকারের কাটিং করে মেশিনে ঢোকানোর পর পলেস্টার স্ট্যাপল ফাইবার (পি.এস.এফ) হিসেবে সাদা তুলা বেরিয়ে আসে। উৎপাদন তুলা বাজারে ‘বিক্রি করা কার্পাস তুলার মতই মোলায়েম ও মসৃণ।

প্লাস্টিক বোতল থেকে তুলা তৈরির এই প্রক্রিয়া সম্পন্ন করার পর র’প্ত ানির উদ্দেশ্যে মেশিনেই তা প্যাকেজিং করা হয়। এ থেকে সুতার মতো যে বর্জ্য বের হয় সেটিও আবার রি-সাইকেল প’দ্ধতিতে তুলা তৈরিতে ব্যবহূত হয়। জানা গেছে, এ ধরনের তুলার ব্যাপক চাহিদা রয়েছে চীনসহ ইউরোপীয় ইউনিয়নের দেশগু’লোতে।

আগে চীন কাঁচামাল হিসেবে সরাসরি প্লাস্টিক পেট বোতল আম’দানি করে নিজেরাই এ ধরনের তুলা উৎপাদন করত। সম্প্রতি দেশটি প্লাস্টিক বোতল আম’দানি নি’ষি’দ্ধ করেছে। ফলে এখন ফিনিশড পণ্য হিসেবে ফাইবার বা পি.এস.এফ. আম’দানি করছে দেশটি। এ কারণে র’প্ত ানি পণ্য হিসেবে এ ধরণেন পি.এস.এফ তুলার কদর বাড়ছে। মুমানু পলিয়েস্টার ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের এমডি আবুল কালাম মোহাম্ম’দ মূসা বলেন, এ ধরনের কারখানা গড়ার পেছনে দুটো উদ্দেশ্য কাজ করেছে।

এক : ফাইবার তৈরির কাঁচামাল হিসেবে প্লাস্টিকের ফেলে দেওয়া বোতল ব্যবহার করায় পরিবেশ দূষণের হাত থেকে রক্ষা পাচ্ছে বাংলাদেশ। কারণ ফাইবার বানাতে যে ধরনের বোতল ব্যবহৃত হয় তা মাটির সঙ্গে মেশে না। ফলে পরিবেশের ব্যাপক দূষণ করে এটি। সেজন্য পরিবেশ সুরক্ষায় ফেলে দেওয়া এই বোতল কারখানায় ব্যবহার করা হচ্ছে কাঁচামাল হিসেবে।

দুই : এই বর্জ্য থেকে উৎপাদিত ফাইবার বিদেশে র’প্ত ানি করে প্রচুর বৈদেশিক মুদ্রা আয়ের পাশাপাশি কর্মসংস্থান সৃ’ষ্টির সুযোগ তৈরি হয়েছে। কারখানার কর্মক’র্তারা জানান, বাংলাদেশে এই প্রথম স্থাপিত এ ধরনের কারখানা থেকে দৈনিক প্রায় ৪০ মেট্রিক টন তুলা উৎপাদিত হচ্ছে, যা শিগগিরই ৮০ মেট্রিক টনে উন্নীত হবে।

প্রতি কেজি পি.এস.এফের র’প্ত ানি মূল্য এক ডলার হলেও দৈনিক প্রায় ৮০ হাজার ডলারের তুলা উৎপাদনে সক্ষ’ম ওই কারখানাটি। তবে সম্ভাবনাময় এই শিল্পটিতে সুযোগ সৃ’ষ্টির পাশাপাশি কিছু চ্যালেঞ্জও রয়েছে। কারখানার কর্মক’র্তারা জানান, নতুন প্রযুক্তির কারখানাটি স্থাপনের পর কাঁচামাল সংগ্রহসহ দেশীয় বাজারে উৎপাদিত তুলার যথাযথ মূল্য না থাকায় এটি অলাভজনকভাবে পরিচালিত হচ্ছে। বর্তমানে সরকার পেট বোতল ফ্লেক্স র’প্ত ানিতে ১০ শতাংশ হারে ভর্তুকি দিচ্ছে। কারখানা সংশ্লি’ষ্টরা পেট বোতল ব্যবহার করে ফাইবার উৎপাদন করার ক্ষেত্রে মূল্য সংযোজন করছেন।

ফলে এই খাতে তারা ২০ শতাংশ র’প্ত ানি ভর্তুকির সুযোগ চান সরকারের কাছে। আবুল কালাম মোহাম্ম’দ মূসা বলেন, আমা’দের উৎপাদিত ফাইবারের চাহিদা বিদেশে থাকলেও দেশে এখনো সে ধরনের চাহিদা তৈরি হয়নি। ফলে যথাযথ মূল্য পাওয়া যাচ্ছে না। এই অবস্থায় সরকার র’প্ত ানি ভর্তুকি দিলে সম্ভাবনাময় এই শিল্প খাতের ‘বিকাশ ঘটবে। এতে ফেলে দেওয়া বর্জ্য ব্যবহার করে যেমন বৈদেশিক মুদ্রা আয় করা সম্ভব হবে, তেমনি নতুন কর্মসংস্থান সৃ’ষ্টি হবে সম্ভাবনাময় এই শিল্পে। তথ্যসূত্র : বাংলাদেশ প্রতিদিন।

Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!