ছাত্রকে খড়ের গাদার ভিতর নিয়ে খারাপ কাজ করে শিক্ষিকা

ছাত্রকে খড়ের গাদার ভিতর নিয়ে খারাপ কাজ করে শিক্ষিকা

বিশ্বের বিভিন্ন দেশ কত ঘটনাই ঘটে থাকে। তবে কিছু কিছু ঘটনা সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পরে। এমনকি কিছু ঘটনা নিয়ে ব্যাপক আলোচনা

সমালোচনা শুরু হয়। তেমনি একটি ঘটনা নিয়ে ব্যাপক সমালোচনা শুরু হয়। এক ছাত্রের সঙ্গে শিক্ষিকা অনৈতিক সম্পর্ক করে। এই ঘটনা প্রকাশ্যে আসার পর শিক্ষিকা কে গ্রেফতার করা হয়েছে। আর এবার সেই শিক্ষিকা কে শাস্তি দেওয়া হয়েছে। আর এই ঘটনা ঘটেছে বৃটেনে।

বৃটেনে ১৫ বছর বয়সী এক শিক্ষার্থীর সাথে খারাপ কাজ করেছেন ৩৫ বছর বয়সী শিক্ষিকা কেন্দিস বারবার। ঘটনাটি বেশ আগের হলেও শুক্রবার এ অ’পরাধে তাকে ভর্ৎ’স’না করেছেন বিচারক। দিয়েছেন ৬ বছর দুই মাসের জেল। উল্লেখ্য, বারবারা ৩ সন্তানের মা।

ওই শিক্ষার্থীর দাবি, তাকে অ’নৈতিক কাজ করতে সম্পর্কে বা’ধ্য করানোর ফল হিসেবে তার জিসিএসই’র ফল খারাপ হয়েছে। এ খবর দিয়ে অনলাইন ডেইলি মেইল বলছে, ওই শিক্ষার্থীর সঙ্গে অ’নৈতিক কাজ করতে সম্পর্কে বা’ধ্য করে তিনি তাকে সে ঘটনা অন্যদের কাছে প্রকাশ না করতে তাকে হু’’ম’’কি দিয়েছিলেন।

তবে এমন কোনো ঘটনা কখনো ঘটেনি বলে দাবি ওই শিক্ষিকার। অভিযোগের প্রমাণ পাওয়া সাপেক্ষে অ্যালিসবারি ক্রাউন কোর্টের বিচারক তাকে অভিযুক্ত করে ওই শাস্তি দেয়।

অভিযোগে বলা হয়, বারবার অপ্রাপ্ত বয়স্ক একটি বালককে (১৫) একটি ক্ষে’তে’র মধ্যে নিয়ে যায়। সেখানে খ’ড়ের গা’দা’র ভিতর তাকে ’’চু’//’মু’’ খে’/তে শুরু করে। বালকটির কানের কাছে মুখ নিয়ে ফিসফিসিয়ে জানতে চায়- এখন তোমার কি করতে ইচ্ছে করছে? এরপরই তার স’’ঙ্গে অ’নৈতিক সম্পর্ক স্থা’প’ন করে ওই শিক্ষিকা।

তিনি বাকিংহামশায়ারের ওয়েন্ডোভারের প্রিন্সেস রিসবরো স্কুলের সাপ্লাই শিক্ষিকা হিসেবে দায়িত্ব পালন করতেন। তিনি শুধু ওই বালকের স’ঙ্গে অ’নৈতিক কাজ সম্পর্ক স্থা’প’ন করেছেন এমন নয়। একই সঙ্গে তার কাছে নিজের খারাপ ছবিও পাঠিয়েছেন। পরে তাদের এসব গো’’প’’ন কথা কারো কাছে প্রকাশ না করতে হু’’ম’’কি দেয়।

আদালতে বারবারার আইনজীবী যুক্তি উপস্থাপন করেন যে, বারবারার উচ্চতা ৫ ফুট। এমন উচ্চতার একজন নারীর পক্ষে তার এত ছোট শিক্ষার্থীর সঙ্গে শা’’রী’’রি’’ক সম্পর্ক স্থাপন সম্ভব নয়। অন্যদিকে বিবাদী বারবারা দাবি করেন, তিনি ক্যালেন্ডার অনুযায়ী কাজ নিয়ে ভীষণ ব্যস্ত থাকতেন। ফলে ছাত্রদের সঙ্গে ঘু’মানোর মতো তার হাতে ছিল না।

কিন্তু অ্যালিসবারি ক্রাউন কোর্টে রেকর্ডার বল ঢালিওয়াল তাকে জেল দিয়ে বলেছেন, তিনি আস্থার ভ’’য়া’’ব’’হ ল’’ঙ্ঘ’’ন করেছেন। তার ভাষায়- আপনার কাছে যে শিশুর দেখাশোনা করতে দেয়া হয়েছিল আপনি তার কাছ থেকে সুবিধা নিয়েছেন। স্কুলের শেষ বছরে ওই বালকের বয়স ছিল মাত্র ১৫ বছর। তার ওপর আপনার ক’ন্ট্রো’ল ও কর্তৃত্ব ছিল। এই সুযোগে তাকে আপনি নিজে খারাপ করেছেন।

এমনকি ঘটনা প্রকাশ না করতে তাকে আপনি হু’’ম’’কি দিয়েছেন। আপনার অবস্থানগত কারণে তার ওর্প আপনার কার্যত নি’য়’ন্ত্র’ণ ছিল।
উল্লেখ্য, ওই ১৫ বছর বয়সী বালককে বারবারা শুধু যে খারাপ ছবি পাঠিয়েছেন তা নয়। একই সঙ্গে পাঠিয়েছেন খারাপ সব টেক্সট ম্যাসেজ। নিজে বিছানায় শুয়ে আছেন, আর তার চারপাশে সেক্সটয় ছড়িয়ে আছে- এমন ছবিও ওই বালককে পাঠিয়েছেন তিনি। এক পর্যায়ে নিজের খারাপ ছবি পাঠান।

এদিকে, এই ঘটনা যখন প্রকাশ্যে আসে তখন ব্যাপক আলোচনা সমালোচনা শুরু হয়। এমনকি ওই শিক্ষিকা কে নিয়ে অনেকে নানা রকম কথা বলতে শুরু করেন। এই শিক্ষিকা ছাত্র কে দীর্ঘদিন ধরে নানা রকম টেক্সট ম্যাসেজ ও খারাপ ছবি দিয়ে আসছিল। আর একটা সময় তার সাথে খারাপ কাজ করে শিক্ষিকা। তবে অবশেষে এই শিক্ষিকা কে শাস্তি দেওয়া হয়েছে।

Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!