কচুরিপনা থেকে কই ও মাগুর মাছ ধরের চমক লাগিয়ে দিলেন গ্রামের বৌদি, দেখুন ভিডিও সহ

কচুরিপনা থেকে কই ও মাগুর মাছ ধরের চমক লাগিয়ে দিলেন গ্রামের বৌদি, দেখুন ভিডিও সহ

ভিডিওটা রয়েছে শেষের দিকে…?

আমরা হচ্ছি মাছে-ভাতে বাঙালি। মাছ ছাড়া আমাদের একদিও চলে না। মাছ নিয়ে বাঙালির মনের কোণে আছে তীব্র আবেগ ও ভালোবাসা। একজন বাঙালি পৃথিবীর যে প্রান্তেই থাকুক না কেন, মাছ তাকে কাছে টেনে নেবেই। তাই তো ‘মাছে-ভাতে বাঙালি’ যেন বাঙালি জীবনের ঐতিহ্য বহন করে।

সেই প্রিয় খাবার মাছকে ধরার জন্য যে যার সুবিধার মত করে বিভিন্ন ফাঁদ তৈরি করে থাকি। তার মধ্যে জনপ্রিয় কিছু ফাঁদ রয়েছে যা দিয়ে বাঙালি প্রচীন কাল থেকে এখনো মাছ ধরে থাকে। সেই ফাঁদ গুলো হচ্ছেঃ

১/ জখম করার হাতিয়ার: ২/টানাবড়শি: ৩/বোতল দিয়ে ফাঁদ তৈরিঃ ৪/কোঁচ দিয়ে মাছ শিকার: ৫/কর্মরেন্ট পাখি দিয়ে মাছ শিকার: ৬/হাঁসের বাচ্চা দিয়ে মাছ শিকার: ৭/খুঁটিতে বসে বসে মাছ শিকার: ৮/ঝাঁকিজাল দিয়ে মাছ ধরাঃ ৯/ফলিং নেট দিয়ে মাছ ধরাঃ ১০/ধর্ম জাল দিয়ে মাছ ধরাঃ ১১/ঠেলা জাল দিয়ে মাছ ধরাঃ ১২/পলো ইত্যাদি

উপরের উপকরণ ছাড়াও আরো অনেক অজানা মাছ ধরার ফাঁদ রয়েছে। বর্তমান সময়ে মানুষ তার প্রতিভাবে কাজে লাগিয়ে অনেক আধুনিক পদ্ধতি ব্যবহার করে অতি সহজে মাছ ধরছে।

আজ আপনাদেরকে দেখাব যে গ্রামের বৌদি কিভাবে অসাধারণভবে পলো দিয়ে মাছ ধরে সবাইকে চমক দেখিয়ে দিলেন। এই ভিডিওতে মাছ ধরতে যে সরঞ্জাম ব্যবহার করা হয়েছে তা একটি দেশীয় সরঞ্জাম।

এই সরঞ্জাম থেকে পলো জাল বলা হয়। এটি বাঁশ দিয়ে তৈরি করা।যারা বাঁশ দিয়ে বিভিন্ন সরঞ্জাম তৈরি করতে পারে তারা এই বাঁশের জালটিও তৈরি করতে পারে। তাদের জন্য এই ধরনের জাল তৈরি করা খুব সহজ বিষয়। কিন্তু এই গানগুলো সচরাচর কিনতে পাওয়া যায় না। যারা এই জাল দিয়ে মাছ ধরে তারা নিজ হাতে তৈরি করে নেয়।

বাশ এবং চিকন সুতা ব্যবহার করে এই জালটি তৈরি করা হয়। বিশেষ করে জেলেরা এধরনের জাল তৈরিতে পারদর্শী থাকে। ভিডিওটিতে একটি মহিলা জাল নিয়ে তার এলাকার ডুবায় যায় মাছ ধরার জন্য।

ডোবাটি ছিল কচুরিপানা দিয়ে একদম ঢাকা। তিনি এই কচুরিপানার নিচে জাল মারার সাথে সাথে বিভিন্ন প্রকার দেশীয় মাছ জালে উঠে আসে। যেমন: শিং,কই, মাগুর, পুটি ইত্যাদি। কিছুক্ষণের মধ্যেই তিনি অনেকগুলো মাছ ধরে ফেললেন। এই দেশীয় মাছ গুলো খেতে অনেক স্বাধের হয়ে থাকে ।

ভিডিওটি দেখতে

ক্লিক করুন

Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!