লেখক মুশতাকের মৃত্যু: গ্রেপ্তারকৃত বিক্ষোভকারীদের মুক্তি চেয়েছে আসক

লেখক মুশতাকের মৃত্যু: গ্রেপ্তারকৃত বিক্ষোভকারীদের মুক্তি চেয়েছে আসক

কারাগারে বন্দি থাকা অবস্থায় লেখক মুশতাক আহমদের মৃত্যুর ঘটনায় প্রতিবাদ ও বিক্ষোভ কর্মসূচিতে পুলিশের লাঠিপেটা এবং বিক্ষোভকারীদের

গ্রেফতারের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদসহ গ্রেপ্তারকৃতদের মুক্তির দাবি জানিয়েছে আইন ও সালিশ কেন্দ্র (আসক)। আজ রোববার (২৮ ফেব্রুয়ারি) আসক থেকে পাঠানো এক প্রেসবিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

এতে বলা হয়, কারাবন্দি লেখক মুশতাক আহমেদের মৃত্যুর ঘটনায় রাজধানীর শাহবাগে প্রতিবাদ ও বিক্ষোভ কর্মসূচিতে পুলিশের লাঠিপেটা ও কাঁদনে গ্যাসের সেল নিক্ষেপ এবং পরবর্তী সময়ে বিক্ষোভকারী ছাত্রনেতাদের মধ্যে ৭ জনকে গ্রেপ্তারের ঘটনা ঘটে। অন্যদিকে লেখক

মুশতাককে নিয়ে ফেসবুকে পোস্ট দেওয়ার অভিযোগে খুলনায় বাসদ নেতা রুহুল আমিনের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে গ্রেপ্তারসহ তাকে রিমান্ডে নেওয়া হয়েছে। আইন ও সালিশ কেন্দ্র এসব ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান। একইসঙ্গে রুহুল আমিনসহ গ্রেপ্তারকৃত আন্দোলনকারীদের অনতিবিলম্বে মুক্তি দেওয়ার দাবি জানান।

বিভিন্ন গণমাধ্যমসূত্রে জানা যায়, গত ২৬ ফেব্রুয়ারি ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে দায়েরকৃত মামলায় কারা হেফাজতে লেখক মুশতাক আহমেদের মৃত্যুর ঘটনার প্রতিবাদে রাজধানীর শাহবাগে বিভিন্ন বাম সংগঠনের আয়োজিত প্রতিবাদ ও বিক্ষোভ কর্মসূচিতে বিক্ষোভকারীদের ওপর পুলিশ লাঠিপেটা ও কাদানে গ্যাস নিক্ষেপ করে।

এ ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে ওইদিন রাতে বিক্ষোভকারী ছাত্র ইউনিয়ন ও সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্টের ৭ নেতাকে গ্রেপ্তার করা হয়। অন্যদিকে লেখক মুশতাককে নিয়ে ফেসবুকে পোস্ট দেওয়ার অভিযোগে খুলনায় বাসদ নেতা রুহুল আমিনের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে গ্রেপ্তারসহ তাকে রিমান্ডে নেওয়া হয়েছে।

আসক মনে করে, বর্তমানে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন সরকার ও রাষ্ট্রযন্ত্রের দমন-নিপীড়নের সুবিধার্থে ক্রমান্বয়ে মানুষের মুক্তচিন্তার অধিকার হরণের হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে।

একইসঙ্গে প্রায়শ বিভিন্ন প্রতিবাদ কর্মসূচিতে আন্দোলনকারীদের ওপর পুলিশের অতিরিক্ত শক্তিপ্রয়োগ ও তাদের নানাভাবে হেনস্তা করা হচ্ছে যা সংবিধানে স্বীকৃত সভাসমাবেশের অধিকারের লঙ্ঘণ। এভাবে মানুষের মতপ্রকাশ ও প্রতিবাদ সমাবেশ করার অধিকার চরমভাবে লঙ্ঘন করা কোনোভাবেই গণতান্ত্রিক আচরণ নয়। আসকের তীব্র প্রতিবাদ জানায়।

আসক থেকে একটি প্রতিনিধিদল লেখক মুশতাকের মৃত্যু সংক্রান্ত তথ্য সংগ্রহের জন্য ২৭ ফেব্রুয়ারি কাশিমপুর কারাগার কর্তৃপক্ষের সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে গেলে তাদের দীর্ঘক্ষণ বসিয়ে রেখে করোনার কারণে দেখা করা সম্ভব নয় বলে কারা কর্তৃপক্ষের পক্ষ থেকে জানানো হয়।

আসক আবারো কারা হেফাজতে লেখক মুশতাক আহমদের মৃত্যুর ঘটনার সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ ও গ্রহণযোগ্য তদন্ত নিশ্চিত করার এবং একই মামলায় কারাবন্দি কিশোরের মুক্তি দেওয়ার দাবি জানান।

Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!