টাকার হাট!যেখানে মিলবে সব ধরণের টাকা-পয়সা (দেখুন ভিডিও সহ)

টাকার হাট!যেখানে মিলবে সব ধরণের টাকা-পয়সা (দেখুন ভিডিও সহ)

টাকা বেচা-বিক্রি হচ্ছে রাজধানীর ঢাকায়। প্রায় ৫০ বছর ধরে গুলিস্তান পাতাল মার্কেটের সিঁড়ির সামনের ফুটপাতে এ হাটটি চলে আসছে। কম দামে টাকার বিনিময়ে নতুন টাকা, নতুন টাকার বিনিময়ে ছেঁড়া ও পুরান টাকা বিক্রি হচ্ছে এ ফুটপাতে।

গুলিস্তানের এ স্থানটি ঘিরেই অর্ধশতাধিক মানুষ টাকা বেচা-বিক্রির ব্যবসা করছেন। এই ব্যবসা দিয়ে ঘর-সংসার চলে সবার। দুই টাকা থেকে শুরু করে ১০০ টাকা পর্যন্ত সবধরনের নোটের নতুন বান্ডেল পাওয়া যাচ্ছে গুলিস্তানের এই ‘টাকাওয়ালাদের’ কাছে।

ব্যবসায়ীরা জানান, ছেঁড়া টাকা নিয়ে অনেকেই বেকায়দায় পড়েন। যারা এই ছেঁড়া টাকা চালাতে পারে না তাদের কাছ থেকে টাকার নির্ধারিত দামের চেয়ে কম মূল্যে নোটগুলো কিনে নেন।

এছাড়া নতুন নোটের বান্ডেলও তারা বিক্রি করেন। এক্ষেত্রে ১০০ টাকা একটি বান্ডেল ১০০ টাকা। ২০ টাকার ১০০টি নতুন নোট নিতে ৮০-১০০ টাকা, ৫০ টাকার ১০০টি নতুন নোট নিতে ১০০ টাকা, ১০০ টাকার ১০০টি নতুন নোট বিক্রি হয় ৭০-৮০ টাকা।

ব্যবসায়ী জানান, প্রতিদিন দুইশ থেকে এক হাজার টাকা পর্যন্ত আয় হয়। কখনও কখনও আবার মোটেও হয় না। তবে কোনো কাস্টমার আসলে তাকে কেই ফিরে যেতে দেন না। খুব কম লাভ হলেও টাকার নোট বিক্রি করে দেন তারা।

ব্যবসায়ীরা আরও জানান, উৎসব মৌসুমে তাদের টাকা বেচা-বিক্রির ব্যবসা জমে ওঠে। বিশেষ করে দুই ঈদে এর চাহিদা থাকে বেশি। সে সময় একজন ব্যবসায়ী টাকা বিক্রি করে কমপক্ষে এক লাখ টাকা আয় করেন। বছরের অন্যসব দিনে যে টাকা আয় হয় তার অর্ধেক আয় হয় দুই ঈদের সময়ে।

তবে সম্প্রতি সিটি কর্পোরেশনের পক্ষ থেকে ফুটপাতে হকার বসার বিষয়ে কড়াকড়ির কারণে পথে বসার উপক্রম হয়ে পড়েছে এই টাকা ব্যবসায়ীদের। একটু ফাঁকা পেলে বসলেই পুলিশ ও সিটি কর্পোরেশনের নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা স্বেচ্ছাসেবকরা তাড়া ‍করেন। তখন টাকায় ব্যাগ নিয়ে পালাতে হয় তাদের। মাঝে মধ্যে দেখা দেয় ছিনতাইচক্র। তারা হঠাৎ করেই টাকার বান্ডেল নিয়ে দৌড় দেয়।

দীর্ঘ ১৩ বছর ধরে রাজধানীর গুলিস্তানের পাতাল মার্কেটের সামনে টাকার ব্যবসা করেন নোয়াখালীর সোনাইমুড়ি উপজেলার নুর হোসেন। তিনি জাগো নিউজকে জানান, প্রতিদিন ৫ থেকে ১০ হাজার টাকার নতুন বান্ডেল নিয়ে আসেন। কোনো সময় সব টাকাই বিক্রি হয়ে যায়। আবার কখনও হয় না। গড়ে ৭ থেকে ৮শ টাকার মতো থাকে। এ দিয়েই তিন সদস্যের সংসার চলে যায়।

তিনি জানান, প্রতিদিন যে আয় হয় তার থেকে আবার ২০০ টাকা লাইনম্যানকে দিতে হয়। তারা পুলিশ ও ফুটপাতের জায়গা বিক্রি করে এ টাকা নেয়। টাকা না দিলে ফুটপাতে বসতে দেয়া হয় না।

ভিডিওতি দেখতে ক্লিক করুন

Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!