একটি শিশু একটা হোটেলএ কত কষ্ট করে কাজ করতেছে ,এই দৃশ্য দেখার পর নিজেকে ঠিক রাখতে পারবেন না ভিডিওটি

একটি শিশু একটা হোটেলএ কত কষ্ট করে কাজ করতেছে ,এই দৃশ্য দেখার পর নিজেকে ঠিক রাখতে পারবেন না ভিডিওটি

শিক্ষার সুযোগ লাভ করা শিশুর অন্যতম মৌলিক অধিকার। অধিকাংশ দেশেই সামাজিক দায়-দায়িত্বের অংশরূপে এবং অভিভাবকের দিকনির্দেশনায় কিংবা রাষ্ট্রের বাধ্যতামূলক শিক্ষানীতির আলোকে শিশুরা বিদ্যালয় গমন করে।

এছাড়াও, ক্ষুদে শিশুরা কিন্ডারগার্টেনের প্লে-গ্রুপে আনন্দ ও খেলার ছলে শিক্ষাগ্রহণ করে শৈশবকালীন প্রাথমিক শিক্ষাকে আলোকিত ও আনন্দময় করে তুলে।
কিন্তু অনুন্নত দেশ বা পশ্চাদমূখী দেশে মাঝেমাঝে কিংবা প্রায়শঃই মাতা-পিতার সাথে শ্রমকার্যে অংশগ্রহণ করে অর্থ উপার্জনে জড়িয়ে পড়তে হয়। অথবা যুদ্ধে অংশ নিতে হয়।

এই সময়ে মানুষ কি শিখবে, যেখানে যান বাঁচানো, খেয়ে পরে বেঁচে থাকাটাই আসল. এই কারণে লিখা হচ্ছে না, লেখা পাচ্ছি ও না আমরা. সবাই নিজেকে নিয়ে ব্যস্ত এবং এটাই স্বাভাবিক গত কিছুদিন থেকে আমি সবকিছু আবার আগের মতো স্বাভাবিক হচ্ছে আমি যে শহরে থাকি সেখানে. মানুষের সচেতনতার কারণে এবং স্থানীয় সরকারের কঠোর ভাবে নিয়ম মেনে চলার ফল আমরা পাচ্ছি.

একটি জিনিস লক্ষ্য করলাম, মানুষের গায়ের রং যাই হোক না কেন, সবাই কিন্তু হাসতে পারে না.কাজে তে আসে যদি কেউ না হাসে (হাসি মুখ) তাহলে আমাদের যারা কাস্টমার আসবে তাদের সাথে ও ারা মুখ গুমরা করে কথা বলবে. রেস্টুরেন্ট এ কাস্টমার থেকে অর্ডার সবাই নিতে পারে, কিন্তু আমরা তাদের কথাই মনে রাখি যারা আমাদের সাথে আন্তরিক ভাবে কথা বলে.

৫ বছরের একটি ছেলে কে আমি বাছাই করেছি, যার মুখে মাঝে মাঝে কোনো কারণ ছাড়াই হাসি লেগে থাকে, এখানে যেহেতু ঘন্টা হিসেবে টাকা দেয়া হয়, যে যত ভালো সে ততবেশি ঘন্টা কাজ পাবে এবং আমি বলে রেখেছি এই ছেলেকে যেন আমরা বেশি রাখি কাজে যাতে শুধু কাস্টমার না, যারা আরো কর্মচারী/স্টাফ আছে তারাও যাতে খুশি হয়ে থাকে এই ছেলেকে দেখে.

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন

Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!