কবর খুঁ’ড়’তে গিয়ে হাজার বছর আগের কুরআনের আয়াত উদ্ধার হয়েছে,খন্ড খন্ড পা’থ’র লেখা রয়েছে আয়াতগুলি

কবর খুঁ’ড়’তে গিয়ে হাজার বছর আগের কুরআনের আয়াত উদ্ধার হয়েছে,খন্ড খন্ড পা’থ’র লেখা রয়েছে আয়াতগুলি

৬৫৫ হিজরী সনে পা’থ’রে খোদাই করে এই আয়াত সমূহ লেখা হয়েছিল খন্ড পা’থ’র’গু’লি’তে কোরআন মাজিদের বিভিন্ন সুরার আয়াত খোদাই করে লেখা আছে কু’র’আ’ন মাজিদের আয়াত লেখা খণ্ড পাথর গু’লো মক্কা ইসলামিক।মিউজিয়ামে

সংরক্ষিত করা হয়েছে আমা’দের প্রা’ণ’প্রি’য় রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম স’র্ব’প্র’থ’ম নিজ হাতে আ’জও’য়া খেজুরের বীজ রোপণ করেছিলেন এ খে’জু’রে’র বীজ রোপন ও জন্মের পেছনে রয়েছে বিশেষ কারণ যার ফ’লে এ খেজুরের

রয়েছে বিশেষ বরকত ও ফ’জি’ল’ত হযরত সালমান ফার্সীর (রা:) মালিক ছিল একজন ই’য়া’হু’দী। হযরত সালমান ফার্সী যখন মুক্তি চাইল ত’খ’ন ইয়াহুদী এই শর্তে তা’কে মুক্তি দিতে চাইল যে যদি তিনি।নির্দিষ্ট ক’য়ে’ক দিনের মধ্যে নগদ ৬০০

দিনার দেন এবং ত্রিশটি খে’জু’র গাছ রোপন করে আর খেজুর গাছে খেজুর ধরলে তবেই সে মুক্ত আ’স’লে ইহুদির মুক্তি দেবার ইচ্ছা ছিল না হযরত সা’ল’মা’ন ফার্সীর (রা:) মালিক ছিল একজন ইয়াহুদী। হযরত সালমান ফার্সী যখন মুক্তি চাইল তখন

ইয়াহুদী এই শর্তে তা’কে মুক্তি দিতে চাইল যে যদি তিনি নির্দিষ্ট কয়েক দিনের মধ্যে নগদ ৬০০ দি’না’র দেন এবং ত্রিশটি খেজুর গাছ রোপন করে আর খে’জু’র।গাছে খে’জু’র ধরলে তবেই সে মুক্ত। আসলে ইহুদির মুক্তি দে’বা’র ইচ্ছা ছিল না কেননা

সালমান ফার্সীর(রা:) পক্ষে ৬০০ দি’না’র যোগাড় করা কঠিন ছিল। আর ৬০০ দিনার যোগাড় ক’র’লে’ও খেজুর গাছ রোপন করে তাতে ফল ধরে ফল পাকানো অ’নে’ক সময়ের ব্যাপার যাক হযরত সালমান ফার্সী(রা:) রাসুল সা’ল্লা’লা’হু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর দরবারে এসে ঘটনা বর্ণনা করলেন রা’সু’ল

সাল্লালাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ৬০০ দি’র’হা’মে’র ব্যবস্থা করলেন তারপর হ’য’র’ত আলী (রাঃ) কে সাথে নিয়ে গেলেন ইয়াহুদীর কাছে ইহুদী এক কাঁদি খে’জু’র দিয়ে বলল এই খেজুর থেকে চারা উৎপন্ন করে তবে ফল ফ’লা’তে হবে। রাসুল সাল্লালাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম দে’খ’লে’ন যে ইহুদীর দেয়া

খেজুরগু’লো সে আ’গু’নে পুড়িয়ে কয়লা করে ফেলছে যাতে চারা না উঠে। রাসুল সাল্লালাহু আ’লা’ই’হি ওয়াসাল্লাম খেজুরের কাঁদি হাতে নিয়ে আলী (রাঃ) কে গর্ত ক’র’তে বললেন আর সালমান ফার্সী (রা:) কে বললেন পানি আ’ন’তে আলী (রাঃ)

গর্ত করলে রাসুল সাল্লালাহু আ’লা’ই’হি ওয়াসাল্লাম নিজ হাতে প্র’তি’টি গর্তে সেই পোড়া খেজুর রোপন ক’র’লে’ন রাসুল সাল্লালাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সা’ল’মা’ন ফার্সী (রা:) কে এ দির্দেশ দিলেন যে বা’গা’নে’র শেষ প্রান্তে না যাওয়া পর্যন্ত তুমি পেছন ফি’রে তা’কা’বে না সালমান ফার্সী (রা:)পে’ছ’নে না তাকিয়ে পানি দিতে লাগলেন বা’গা’নে’র শেষ প্রান্তে যাওয়ার পর তিনি তা’কি’য়ে দেখলেন যে প্রতিটি গাছ খে’জু’রে পরিপূর্ণ আর খেজুরগু’লো পেকে কা’লো বর্ণ হয়ে গেছে।

Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!