সাত সকালে রাজধানীর সড়কে প্রাণ গেল স্বামী-স্ত্রীর, এতিম ৪ বছরের শিশু

সাত সকালে রাজধানীর সড়কে প্রাণ গেল স্বামী-স্ত্রীর, এতিম ৪ বছরের শিশু

রাজধানীর বিমানবন্দর এলাকায় বাসচাপায় মোটর সাইকেল আরোহী স্বামী-স্ত্রী নিহত হয়েছেন। সোমবার সকাল সাড়ে ৭টায় বিমানবন্দর সড়কে এ দু’র্ঘট’না ঘটে।

পুলিশ জানায়, মোটরসাইকেলে যাওয়ার সময় বিমানবন্দরের প’দ্মা ওয়েল গেটের পাশে আজমেরি পরিবহনের একটি বাস তাদের চাপা দেয়। এতে ঘটনাস্থলেই মৃ’ত্যু হয় তাদের।

ঘ’টনাটি ঘটেছে ভারতের মুম্বাইয়ের কুরলা এলাকায়। বুধবার মুম্বাই পু’লিশ জানায়, ওই কিশোর পু’লিশের কাছজ`বানব`ন্দী দিয়েছে তাকে অ’পহরণের পর শা’রীরিক মি’লনে বা`ধ্য করেন

কিন্তু বিকেল পর্যন্তসে বাসায় ফেরেনি। তার বাবা থানায় একটি নি’খোঁজ ডাইরিও করেন।জ`বানব`ন্দী দিয়েছে তাকে অ’পহরণের পর শা’রীরিক মি’লনে বা`ধ্য করেন ৩৮ বছর ব’য়সী ম’হিলা।

তার বাবা থানায় একটি নি’খোঁজ ডাইরিও করেন। ওই কিশোর পু’লিশের কাছে জানায়, ২৯ জুন তাকে কল দিয়ে বাড়ির বাইরে ডেকে নিয়ে যান ওই ম’হিলা।

এরপর তার ফোন ও সিম ভে’ঙে ফে’লেন তিনি। কিশোরের অভিযোগ ওই না’রী তাকে শা’রীরিক মি’লনে বা’ধ্য করে।

ইতোমধ্যে ওই ম’হিলাকে কা’রাগারে পাঠানো হয়েছেনিজের বুকের দু’ধ বিক্রি করে ৭ মাসেই কোটি টাকার মালকিন হয়েছেন এই ম’হিলাশি’শুর জন্য মায়ের দু’ধের বিকল্প নেই।

তেমনই ব’য়স্কদের জন্য এই দু’ধ পরিত্যাজ্য। কিন্তু হলে কি হবে! পশ্চিমের শ’রীরচর্চায় জ’ড়িতদের মধ্যে বিশ্বাস,

না’রীর বুকের দু’ধে রয়েছে এমন সব পুষ্টি উপাদান যা অন্য কোনো প্রা’ণীর মধ্যে নেই। আর সেই বিশ্বাসকে পুঁজি করেই সাইপ্রাসের এক না’রী সম্পদের পাহাড় গড়েছেন।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম ইন্ডিপেনডেন্ট সম্প্রতি এক প্রতিবেদনে জানায়, রাফায়েলা ল্যাম্পরুউ নামের ২৪ বছর ব’য়সী সাইপ্রাসের

ওই না’রীমাত্র ৭ মাসেই বুকের দু’ধ বিক্রি করে কোটিপতি হয়ে গেছেন। যা কিনেছে বডি বিল্ডারেরা।প্রতিবেদনে বলা হয়,

রাফায়েলা ল্যাম্পরুউ গত ৭ মাস আগে এক পুত্র স’ন্তানের জ’ন্ম দেন। স’ন্তান হওয়ার পর নিয়মিত বুকের দু’ধ পান করাচ্ছিলেন তিনি।তবে এটাও লক্ষ্য করেন যে,

স’ন্তানকে খাওয়ানোর পরও দু’ধ যথেষ্ট ন’ষ্ট হচ্ছে। তাই ঠিক করেন বাড়তি দু’ধ তিনি বিক্রি করবেন।প্রথমে তিনি অসমর্থ মায়েদের দু’ধ দান করতেপ্রথমে তিনি এই বি’ষয়ে ব্যবসা করার কথা ভাবেননি,

তিনি সেই সমস্ত মায়েদের দু’ধ দান করতেন যারা তাদের বাচ্চাদের দু’ধ খাওয়াতে অসমর্থ ছিল। এরপর কিছু ব্যক্তি তার সাথে দেখা করেন দু’ধ সাপ্লাই দেওয়ার কথা বলে আর রাফায়েলা তাতে রাজি হয়ে যান।

দু’ধের চা’হিদা দেখার পরই তিনি ব্যবসা শুরু করেন, প্রতি লিটার দু’ধের দাম নেন ১ ইউরোরাফায়েলা তার দু’ধের চা’হিদা দেখে এবং

ক্রেতার পরিমাণ বেড়ে যাওয়াতে দু’ধ বিক্রি শুরু করে দেন ই-কমার্স সাইটে। অর্থাৎ তিনি অনলাইনে দু’ধের অর্ডার নেওয়া এবং বিক্রি শুরু করেন।

Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!