দেখাশোনার জন্য কেউ নেই, তাই ছোট্ট মেয়েকে সাথে নিয়েই কাজ করছে ডেলিভারি বয়!

দেখাশোনার জন্য কেউ নেই, তাই ছোট্ট মেয়েকে সাথে নিয়েই কাজ করছে ডেলিভারি বয়!

আমাদের চারিপাশে এমন অনেক ঘটনা ঘটে যা সম্পর্কে আমরা হয়তো জানতেই পারতাম না যদি না সোশ্যাল মিডিয়া থাকত। এমন অনেক কিছু প্রতিদিন সারা পৃথিবীতে ঘটে চলেছে যা কিনা সত্যি

চিন্তা করতে বাধ্য করে। আর এই সমস্ত ভিডিওগুলি বর্তমানে সোশ্যাল মিডিয়ার দৌলতে ব্যাপক ভাইরাল হয়ে পরে। মুহূর্তের মধ্যেই গোটা পৃথিবীর মানুষ দেখে ফেলতে পারে সেই ভাইরাল ভিডিও (Viral Video)। ভাইরাল এই ভিডিওগুলিতে হাসি মজার কাহিনী থেকে শুরু করে মন ছুঁয়ে যাবার মত কাহিনী রয়েছে ভরপুর।

সকলের মা বাবরই ইচ্ছ ঠকে সন্তানকে তাঁরা ভালোভাবে মানুষ করবে। সন্তানদের চাহিদা পূরণ করতে মানুষ কি না করে! আবার সন্তানদেরকে আগলে রাখতেও বাবা মা সব কিছু করতে পারেন।

অনেকেই অনেক কষ্ট করে ছেলে মেয়েদের মানুষ করে তোলে।আমাদের চারপাশে এমন অনেক নিদর্শনই হয়তো দেখতে পাওয়া যাবে। তবে সম্প্রতি একটি ভিডিও বেশ ভাইরাল হয়ে পড়েছে সোশ্যাল মিডিয়াতে যেখানে একটু করুন কাহিনী সামনে এসেছে।

গরিবের সংসারে শখ পূরণের জায়গা খুবই কম থাকে। তবে সন্তানদের মুখ চেয়ে বাবা মা দিন রাত পরিশ্রম করে হলেও তাদের শখ পূরণ করতে চেষ্টা করে। এবার চীনের এক বাবা আর তার মেয়ের ভিডিও ব্যাপক ভাইরাল হয়ে পড়েছে সোশ্যাল মিডিয়াতে। বাবা ও মেয়ের এই কাহিনী হয়তো চোখে জল এনে দিতে পারে।

চীনের বেজিংয়ের বাসিন্দা লি। একটি দু বছরের সন্তান ও স্ত্রীকে নিয়েই লির ছোট্ট পরিবার। তবে আর্থিক দিক থেকে অনেকটাই গরিব তাঁরা। সংসার খরচ চালাতে লি ও তাঁর স্ত্রী দুজনকেই কাজে বেড়াতে

হয়। নাহলে সংসার চালানো ও ছোট্ট মেয়ের খরচ চালানো দুস্কর হয়ে যাবে। কিন্তু মুশকিল হল স্বামী স্ত্রী দুজনেই যদি কাজে বেরিয়ে যায় তাহলে তাঁদের ছোট্ট মেয়ের দেখাশোনা করবে কে! বাড়িতে যে আর কেউ নেই।

এরপরেই এক অসাধারণ বুদ্ধি করেন লি। তিনি পেশায় একজন ডেলিভারি বয়। স্কুটিতে করে ডেলিভারির কাজ করেন তিনি। তাই ঠিক করলেই মেয়েকে নিজের সাথে স্কুটিতে করে নিয়েই ঘুরবেন।

আর যেমনি ভাবা তেমনি কাজ। দিব্যি মেয়েকে স্কুটিতে বসিয়ে নিয়েই ডেলিভারির কাজ করছেন লি। লি এর এই ভিডিওটি চীনের একটি সংবাদ মাধ্যম সংস্থা সোশ্যাল মিডিয়াতে ভিডিও হিসাবে তুলে ধরে। সেই ভিডিও বর্তমানে বেশ ভাইরাল হয়ে পড়েছে সোশ্যাল মিডিয়াতে।

Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!